অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিয়ে বাংলাদেশে উদ্বেগ, সারা দেশে চিঠি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১২ আগস্ট ২০২০, বুধবার
প্রকাশিত: ০৭:০৬ আপডেট: ০৮:৫৯

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিয়ে বাংলাদেশে উদ্বেগ, সারা দেশে চিঠি

দাহ্য পদার্থ অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ভয়াবহ বিষ্ফোরণে লেবাননের রাজধানী বৈরুত এখন ধ্বংস্তুপে পরিণত হয়েছে। শতশত মানুষ নিহতের সঙ্গে সঙ্গে সেখানে দেখা দিয়েছে মানবিক সংকটও।

লেবাননের এমন পরিস্থিতিতে ভাবনায় ফেলে দিয়েছে অনেক দেশকেই। সেই তালিকায় বাংলাদেশও রয়েছে। বৈরুতের বিস্ফোরণের পরপরই বাংলাদেশের ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করেছে বিস্ফোরক পরিদফতর। জেলায় জেলায় সতর্ক চিঠিও দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিস্ফোরক পরিদফতরের প্রধান মো. মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, বৈরুতের ঘটনার পর সারা দেশে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, স্থল, নৌ ও বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে পরামর্শ দেয়া হয়েছে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো নিয়ন্ত্রিত পদার্থ আমদানি হলে তা যেন অতিদ্রুত বন্দর এলাকা থেকে সরিয়ে ফেলা হয়।

তিনি জানান, বিস্ফোরকদ্রব্য গুদামজাত করার জন্য বন্দরগুলোতে যেমন বিশেষ ধরনের 'ম্যাগাজিন' বা অস্ত্র-গুদাম থাকে, সেটা বন্দরগুলোতে নেই বলেই ঝুঁকি কমানোর জন্য আমরা এই পরামর্শ দিয়েছি। আমদানি করা অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট সাধারণত বন্দরের নিরাপত্তা প্রহরীদের পাহারায় থাকে, এবং পরে বন্দর থেকে বের করে পুলিশের পাহারায় এগুলো গুদামে তোলা হয়।

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ধরনের দাহ্য পদার্থের আমদানির অনুমতি দেয়া এবং নিরাপদভাবে এগুলো সংরক্ষিত হচ্ছে কিনা তা তদারকির দায়িত্ব বিস্ফোরক পরিদফতরের, কিন্তু সারা দেশে এই প্রতিষ্ঠানটির ৫ জন কর্মকর্তা রয়েছে তদারকির জন্য।

এই অল্প কর্মকর্তা দিয়ে সারা দেশে তদারকি সম্ভব হচ্ছে না। আর আমদানি করা এই রাসায়নিক গুদামজাত করার জন্য দেশের বন্দরগুলোতে কোন নিরাপদ ব্যবস্থা নেই বলে কর্মকর্তারা জানান।

ছাড়পত্র পাওয়া আমদানির বাইরে স্থানীয়ভাবে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট উৎপাদন করা হচ্ছে কীনা, কিংবা সেগুলো নিরাপদভাবে বিক্রি, পরিবহণ কিংবা গুদামজাত করা হচ্ছে কীনা, সে সম্পর্কে কর্মকর্তারা কোন তথ্য দিতে পারেনি।

মো. মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, এ ধরনের রাসায়নিক আমদানির জন্য এই মুহূর্তে তিনটি বেসরকারি কোম্পানিকে লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। এরা মূলতঃ মেডিকেল চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য বিভিন্ন উপাদান তৈরি করে, যার মধ্যে রয়েছে নাইট্রাস অক্সাইড বা 'লাফিং গ্যাস' যেটি দাঁতের ডাক্তাররা ব্যবহার করেন। সরকারি পর্যায়ে শুধুমাত্র মধ্যপাড়া গ্র্যানাইট মাইনিং কোম্পানির অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট আমদানির অনুমতি রয়েছে। এই কোম্পানি খনি-গর্ভে বিস্ফোরণের বারুদ হিসেবে এগুলো ব্যবহার করে থাকে।

ব্রেকিংনিউজ/ এসএ

bnbd-ads