ভারত মহাসাগরে চীনা জাহাজ, উত্তেজনা তুঙ্গে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, রবিবার
প্রকাশিত: ০৭:৪৯ আপডেট: ০৯:২৩

ভারত মহাসাগরে চীনা জাহাজ, উত্তেজনা তুঙ্গে

লাদাখের বিরোধপূর্ণ অঞ্চলে চীন ও ভারতের মধ্যে ৫ মাস ধরে উত্তেজনা বিরাজমান। কয়েক দফার বৈঠকেও এর সমাধান আসেনি। বরং উভয়পক্ষের সংঘর্ষে ভারতের ২০ সেনার মৃত্যু হয়। এর মধ্যেই সীমান্তের কাছাকাছি চীনের অসংখ্য জঙ্গি বিমান চক্কর দিচ্ছে গত কয়েকদিন ধরে। এবার এই অবস্থায়ই ভারত মহাসাগরে চীনা জাহাজ চিহ্নিত করেছে ভারত। ভারতকে উদ্বেগে রাখতে চীন তাদের ‘উলফ ওয়ারিয়র’ কৌশলের অংশ হিসেবেই এগুলো করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

ভারতীয় নৌবাহিনী জানায়, মালাক্কা প্রণালী দিয়ে ভারত মহাসাগরে ‘ইউয়ান ওয়াং’ নামে চীনের গবেষণাকারী জাহাজটি গত মাসে ঢুকে পড়েছিল। আর এই জাহাজটিকে ভারতীয় নৌবাহিনী ক্রমাগত নজরে রেখেছিল। তবে শেষ পর্যন্ত দিন কয়েক আগে ফের নিজেদের জলসীমায় ফেরত পাঠানো হয়েছে চীনের গবেষণাকারী জাহাজটিকে।

ভারতীয় নৌবাহিনীর একটি সূত্র জানায়, মূলত এই ধরনের চীনা জাহাজগুলো গবেষণার নামে ভারতের জলসীমায় ঢুকে গোপনে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংগ্রহ করে থাকে।

লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় গত ১৫ জুন চীন ও ভারতীয় সেনাদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। ওই ঘটনায় ভারতের ২০ জন সেনা নিহত হয়। এরপরেও লাদাখ সীমান্তে ভারতীয় সেনাদের সঙ্গে চীনের সেনাদের একাধিক বার সংঘর্ষ হয়েছে। সীমান্তে সংঘাত মেটাতে এখন পর্যন্ত একাধিকবার কমান্ডার পর্যায়ের বৈঠক এবং কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে চীন ও ভারত।

ভারত-চীন ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে সম্প্রতি পিথোরাগড় সীমান্তে চীন সামরিক তৎপরতা বাড়িয়েছে। ভারতীয় নিরাপত্তা এজেন্সি গুলোর মতে, লাদাখ অঞ্চলে চীন এ জাতীয় ক্রিয়াকলাপ অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু পিথোরাগড় সীমান্তে তারা এই প্রথম একটি মানবহীন আকাশযানে পর্যবেক্ষণ করেছে।

সম্প্রতি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, এপ্রিল মাস থেকে একে অপরের চোখে চোখ রেখে দাঁড়িয়ে আছে ভারত ও চীনের সেনাবাহিনী। পরিস্থিতি খুবই সিরিয়াস। দুই পক্ষের গভীর আলোচনার প্রয়োজন বোধ করছেন তিনি।

সমর বিশেষজ্ঞদের মতে, দু'দেশের মধ্যে যুদ্ধের ক্ষেত্র প্রস্তুত হচ্ছে ধীরে ধীরে। গত ৪৫ বছরে একাধিক মৌখিক বা লিখিত চুক্তির মাধ্যমে যে স্থিতাবস্থা নিয়ে এসেছে ভারত ও চীন, তা এক মুহূর্তে ভাঙতে পারে। 

ব্রেকিংনিউজ/এম

bnbd-ads