করোনা ভাইরাস: ভিয়েতনামে ১০ হাজার মানুষ অবরুদ্ধ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: ০৩:০৮

করোনা ভাইরাস: ভিয়েতনামে ১০ হাজার মানুষ অবরুদ্ধ

রাজধানী হ্যানয়ের নিকটবর্তী সন লই এলাকায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কা করা হচ্ছে।ফলে ওই অঞ্চলে প্রায় ১০ হাজার মানুষকে কোয়ারেন্টাইন (অবরুদ্ধ) করে রাখা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ওই এলাকায় নতুন করে ৬ জনের ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।এজন্য এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।এর আগে সেখানে আরও ৯ জন শনাক্ত হয়েছিল।খবর এএফপি, ফ্রান্স টোয়েন্টিফোর, সাউথ চায়না মর্নি পোস্ট, আলজাজিরা।

সন লই, অবরুদ্ধ এলাকাটি রাজধানী হ্যানয় থেকে ৪০ কিলোমটির দূরবর্তী এলাকা।গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ে।চীনের বাইরে এই প্রথম বড় ধরনের কোয়ারেন্টাইনের ঘটনা ঘটেছে। 

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে পরবর্তী ২০দিন সন লইয়ের দুর্যোগপূর্ণ এলাকায় এই কোয়ারেন্টাইন চলমান থাকবে।  

সন লই একটি সমৃদ্ধ কৃষি অঞ্চল।সেখানে অনেকগুলো গ্রাম নিয়ে কৃষি খামার গড়ে উঠেছে। রাজধানীর নিকটবর্তী হওয়ায় এখানকার তাজা শাক-সবজির চাহিদা প্রচুর।এখন এলাকার চারপাশে ব্যারিকেড দিয়ে চেকপোস্ট তৈরি করা হয়েছে। সেখানে কেউ ঢুকতেও পারছেন না, আবার বের হতেও পারছেন না।ফলে দুশ্চিন্তার ছাপ দেখা দিয়েছে কৃষকদের চোখে-মুখে।

এদিকে করোনা ভাইরাসে চীনে গত ২৪ ঘণ্টায় নিহত হয়েছে ২৪২ জন। এতে চীনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১ হাজার ৩৫৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া চীনের বাইরে হংকং ও ফিলিপাইনে ১ জন করে নিহত হয়েছে। এখন পর্যন্ত ভাইরাসে চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৯ হাজার ৫৩৯ জন এবং চীনের বাইরে ৫২৪ জন। সবমিলিয়ে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৬০ হাজার ৬৩ জনে দাঁড়িয়েছে। 

চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানায়, চীনে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ১৪ হাজার ৮৪০ জন। এর মধ্যে ৬ হাজার ৫০০ জনের অবস্থা ভয়াবহ বলে জানানো হয়েছে। পর্যবেক্ষণে রয়েছে ১ লাখ ৮৫ হাজার মানুষ।

হুবেই প্রদেশ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, হুবেইতে নতুন করে ১৪ হাজার ৮৪০ জন আক্রান্তের খবর নিশ্চিত করেছে। এ নিয়ে প্রদেশটিতে নিহত হয়েছে ১ হাজার ৩১০ জন, আক্রান্ত হয়েছে ৪৮ হাজার ২০৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৪২ জনের মধ্যে সবাই হুবেইতে। হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান, সেখানে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ হাজার ৪৩৬ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে। 

এছাড়া চীনে বুধবার (১১ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ৫ হাজার ৬৮০ জন সুস্থ হয়েছে। সুস্থ হওয়ার পর তাদেরকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বুধবার রাত পর্যন্ত ৫ হাজার ৬৮০ জন মানুষ সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছে।

উহানেরই একটি বন্যপ্রাণীর বিক্রয়কেন্দ্র থেকে এই ভাইরাসটির উৎপত্তি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ভাইরাসটি যাতে ছড়িয়ে না যায়, সেজন্য চীন হুবেই প্রদেশকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। ওই অঞ্চলের সাথে সকল ধরনের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে চীনসহ বাইরের বিশ্ব থেকে। 

ভাইরাস সম্পর্কে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিদিন যে পরিমাণ আক্রান্তের খবর আসছে, তাতে আক্রান্তের আসল খবর জানা যাচ্ছে না। কারণ, ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে, শুধু তাদের হিসেব পরিসংখ্যানে ধরা হচ্ছে। তাই এর প্রকৃত হিসেব বের করা বা জানা খুবই কঠিন ব্যাপার, যা আরেকটি আশঙ্কার কারণ।

ভাইরাস সংক্রমণের কারণে চীন ভ্রমণে সতর্কতা, নিষেধাজ্ঞা জারি এবং কড়াকড়ি আরোপ করেছে অনেক দেশ। ভারত, সিঙ্গাপুর, শ্রীলঙ্কাসহ অনেক দেশ চীন থেকে আগত যাত্রীদের ভিসা বাতিল করেছে। ভাইরাসের কারণে, বিশ্বের অনেক দেশ তাদের নাগরিকদের চীন ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। চীনে অধিকাংশ বিমান সংস্থার ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা, ফ্রান্সসহ আরও অনেক দেশ তাদের নাগরিকদের চীন থেকে সরিয়ে নিচ্ছে।

গত ডিসেম্বরে চীনে উদ্ভূত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২৮টি দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এই অবস্থায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। 

যেসব দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে-

চীন- ৫৯ হাজার ৫৩৯ জন আক্রান্ত। মারা গেছে ১ হাজার ৩৫৫ জন। যার অধিকাংশই হুবেই প্রদেশের উহানে। হংকং- ৫০ জন আক্রান্ত, নিহত ১ জন। ফিলিপাইনস- ৩ জন আক্রান্ত, নিহত ১ জন। জাপান- ২০৩ জন, সিঙ্গাপুর- ৫০ জন, থাইল্যান্ড- ৩৩ জন, দক্ষিণ কোরিয়া- ২৮ জন, তাইওয়ান- ১৮ জন, মালয়েশিয়া- ১৮ জন, জার্মানি- ১৬ জন, অস্ট্রেলিয়া- ১৫ জন, ভিয়েতনাম- ১৫ জন, যুক্তরাষ্ট্র- ১৪ জন, ফ্রান্স- ১১ জন, ম্যাকাও- ১০ জন, যুক্তরাজ্য- ৯ জন, সংযুক্ত আরব আমিরাত- ৮ জন, কানাডা- ৭ জন, ভারত- ৩ জন, ইটালি- ৩ জন, রাশিয়া- ২ জন, স্পেন- ২ জন, বেলজিয়াম- ১ জন, কম্বোডিয়া- ১ জন, ফিনল্যান্ড- ১ জন, নেপাল- ১ জন, শ্রীলঙ্কা- ১ জন, সুইডেন- ১ জন।

ব্রেকিংনিউজ/এম

bnbd-ads