আটান্ন বছরের পুরনো খবরের কাগজ যে কারণে ভাইরাল ভারতে!

ভারত ডেস্ক
৮ জুলাই ২০২০, বুধবার
প্রকাশিত: ০২:৩০

আটান্ন বছরের পুরনো খবরের কাগজ যে কারণে ভাইরাল ভারতে!

লাদাখের গালওয়ান উপত্যকা ও সংলগ্ন এলাকায় চীনা বাহিনী 'ডিসএনগেজমেন্ট' বা সৈন্য প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া শুরু করলেও ভারত এখনও তাতে পুরোপুরি আশ্বস্ত হতে পারছে না এবং পরিস্থিতির ওপর সতর্ক নজর রাখছে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, বাষট্টি সালের জুলাই মাসেও গালওয়ান থেকে প্রাথমিকভাবে পিছু হঠে যেভাবে মাস তিনেক পরেই চীন পুরোদস্তুর যুদ্ধ শুরু করেছিল - ইতিহাসের সেই অভিজ্ঞতাই ভারতকে এবার অনেক সাবধানী করে তুলেছে।

ওই বছরের জুলাই মাসের একটি ভারতীয় পত্রিকার শিরোনামও ইতিমধ্যে সে দেশে ভাইরাল হয়ে উঠেছে - যা এখন ভারতের জন্য সতর্কবাণীর কাজ করছে।

ভারতের সাবেক সেনা কর্মকর্তারাও বিবিসিকে বলছেন, সীমান্তে সেনা মোতায়েনের ক্ষেত্রে চীনকে বিশ্বাস করা আসলে প্রায় 'অসম্ভব'।

উনিশ'শ বাষট্টি সালের ১৫ জুলাই, রবিবারের 'দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া' পত্রিকাতে বিরাট শিরোনাম হয়েছিল 'গালওয়ান পোস্ট থেকে চীনের সৈন্য প্রত্যাহার'।

দিল্লির হুঁশিয়ারিতেই এটা সম্ভব হয়েছে, পত্রিকাতে বলা হয়েছিল সে কথাও। ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছিল ভারতীয় সেনাদের সাহসিকতারও।

কিন্তু এর ঠিক ৯৬ দিনের মাথায় সে বছরেরই ২০শে অক্টোবর চীন-ভারতের পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়, আর তারও সূচনা হয় সেই গালওয়ান থেকেই।

এবারেও চীন ও ভারতের মধ্যে বেশ কয়েক দফা আলোচনার পর অবশেষে গালওয়ান ও পার্শ্ববর্তী গোগরা ও হট স্প্রিং এলাকা থেকে চীনা সৈন্য অবশেষে পিছু হঠতে শুরু করেছে ঠিকই, কিন্তু বাষট্টির সেই অভিজ্ঞতাই ভারতকে কিছুতেই নিশ্চিন্ত থাকতে দিচ্ছে না।

দিল্লিতে স্ট্র্যাটেজিক থিঙ্কট্যাঙ্ক ভিআইএফের সিনিয়র ফেলো শ্রীরাধা দত্ত বিবিসিকে বলেছেন, "এবারেও আমরা বারবার দেখছি গালওয়ানে ডিসএনগেজমেন্টের ব্যাপারে সমঝোতা হওয়ার পরও চীন নতুন করে সামরিক স্থাপনা তৈরি করছে, আবার সেনা রিএনফোর্সমেন্ট নিয়ে আসছে।"

"ফলে যে শর্তে সমঝোতা হয়েছে সেটা চীন মেনে চলবে এমন কোনও ভরসা কিন্তু পাওয়া যায়নি। গালওয়ানে হয়তো এক পা পিছিয়েছে, কিন্তু প্যাংগং সো-তে আবার দু-পা এগিয়ে এসেছে।"

ঠিক সেই কারণেই টাইমস আব ইন্ডিয়ার সেই আটান্ন বছরের পুরনো প্রথম পাতাটি ভারতে এখন আবার ভাইরাল হয়ে উঠেছে, দিল্লিকে মনে করিয়ে দিচ্ছে ইতিহাসের শিক্ষা।

দিল্লিতে পর্যবেক্ষকরা একথাও বলছেন যে আসন্ন শীতে চীন আবার পূর্ণশক্তিতে ফিরে আসতে পারে।

কারণ বাষট্টির যুদ্ধে ভারতের শোচনীয় পরাজয়ের একটা বড় কারণ ছিল যুদ্ধটা হয়েছিল শীতে, ভারতীয় সৈন্যরা হিমাঙ্কেরও বিশ-ত্রিশ ডিগ্রি সেলসিয়াস নীচের তাপমাত্রায় লড়ার জন্য প্রস্তুতই ছিল না।

সে অবস্থা এখন অবশ্য অনেকটাই পাল্টেছে বলে শ্রীরাধা দত্তের দাবি।

এদিকে, বাষট্টিতে গালওয়ান বা পঁচাত্তরে তুলুং লা-তে চীনকে নিয়ে ভারতের যে অভিজ্ঞতা, সেই পুরনো ইতিহাসের ভিত্তিতেই এই ২০২০ সালের গ্রীষ্মেও ভারতীয় সেনাবাহিনী মনে করছে চীন পুরোপুরি সেনা সরিয়ে না-নেওয়া পর্যন্ত এবং তার পরেও অন্তত বেশ কয়েক মাস না-দেখে তাদের ভরসা করা যাবে না।

ব্রেকিংনিউজ/অমৃ

bnbd-ads