কুমিল্লার ইতিহাস-ঐতিহ্যের সাক্ষী ‘ধর্মসাগর’

রুবেল মজুমদার, কুমিল্লা
৯ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার
প্রকাশিত: ১১:৪৮ আপডেট: ০৩:৫৭

কুমিল্লার ইতিহাস-ঐতিহ্যের সাক্ষী ‘ধর্মসাগর’

এককালে ছিল প্রাচীন জনপদ কুমিল্লা, এখানে ছিল বিভিন্ন রাজবংশের উত্থান পতন। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রাজারা গড়েছেন রাজ প্রাসাদ, মন্দির, বিহার। কখনও প্রজাদের সুবিধার জন্য তারা খনন করেছেন বিশাল দিঘি। ধর্মসাগর ঠিক এরকম একটা খননকৃত দিঘি। শেষে সাগর নামে যে কটি দিঘি আছে, তার মাঝে ধর্মসাগর সারা দেশে বিশেষ প্রসিদ্ধ।

মূলত ধর্মসাগর, কুমিল্লা শহরে অবস্থিত একটি বিশাল জলাধার। দেশের প্রাচীন দিঘি। শহরের প্রানকেন্দ্রে অবস্থিত এই জলাধারটি। ধর্মসাগরের আয়তন ২৩.১৮ একর। এটির পূর্বে কুমিল্লা স্টেডিয়াম ও কুমিল্লা জিলা স্কুল, উত্তরাংশে সিটি করপোরেশনের নগর উদ্যান ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয় অবস্থিত।

ত্রিপুরার অধিপতি মহারাজা প্রথম ধর্মমাণিক্য ১৪৫৮ সালে ধর্মসাগর খনন করেন। এই অঞ্চলের মানুষের জলের কষ্ট নিবারণ করাই ছিল রাজার মূল উদ্দেশ্য। রাজমালা গ্রন্থ অনুসারে মহারাজা সুদীর্ঘ ৩২ বৎসর রাজত্ব করেন (১৪৩১-৬২ খ্রি:)। মহারাজা ধর্মমাণিক্যের নামানুসারে এর নাম রাখা হয় ধর্মসাগর। ধর্মসাগর নিয়ে ছড়িয়ে রয়েছে বহু উপাখ্যান ও উপকথা। 

১৯৬৪ সালে দীঘিটির পশ্চিম ও উত্তর পাড়টি তদানীন্তন জেলা প্রশাসক মহোদয়ের উদ্যোগে পাকা করা হয়। বর্তমানে ধর্মসাগরের আয়তন ২৩:১৮ একর। কুমিল্লার শহরবাসীর নিকট এই দীঘিটি একটি বিনোদনকেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে। এখানে অবকাশ উদযাপনে প্রতিদিন বিপুল জন-সমাগম হয়ে থাকে। সব মিলিয়ে পরিবেশটা খুব সুন্দর। আশে-পাশের ফুচকা আর চা-পানের দোকান আপনাকে দিবে বাড়তি আনন্দ। 

ইতিহাস থেকে জানা যায়, রাজা ধর্মপালের নামানুসারে এই দীঘির নাম হয়েছে ধর্মসাগর।প্রায় ২০০-২৫০ বছর আগে আনুমানিক ১৭৫০ অথবা ১৮০৮ খ্রিস্টাব্দে প্রজাহিতৈষী রাজা ছিলেন ধর্মপাল। তিনি ছিলেন পাল বংশের রাজা। বাংলায় তখন ছিল দুর্ভিক্ষ। রাজা দুর্ভিক্ষ পীড়িত মানুষের সাহায্যের জন্য এই দীঘিটি খনন করেন। 

যেভাবে যেতে হবে: ঢাকা থেকে কুমিল্লা ৯৬ কিলোমিটারের পথ। ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে সরাসরি বাস যাতায়াত করে। ঢাকা থেকে প্রাইম, তিশা, রয়েল কোচ এশিয়া লাইন ইত্যাদি বাসে আপনি সরাসরি যেতে পারেন। বাস ভাড়া জনপ্রতি ১৫০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। এছাড়া, কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ট্রেনে করেও আপনি কুমিল্লা যেতে পারেন।  

কুমিল্লা শহরে নেমে যে কোন রিক্সা বা অটোরিক্সা নিয়ে সোজা চলে যেতে পারেন ধর্মসাগর। প্রাচীন সভ্যতার অনেক কিছুই হারিয়ে গেছে কালের স্রোতে। যা টিকে আছে তাও কম গৌরবের নয়। প্রাচীন ধর্মসাগর আমাদের সেই সমৃদ্ধ অতীতেরই স্মৃতি বহন করে। তাই সময় করে ঘুরে আসুন কুমিল্লার ধর্মসাগর।

ব্রেকিংনিউজ/নিহে

bnbd-ads