জানুয়ারিতে আমাজন ধ্বংস হয়েছে ২৮০ স্কয়ার কিলোমিটার

পরিবেশ ডেস্ক
৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার
প্রকাশিত: ১০:২২

জানুয়ারিতে আমাজন ধ্বংস হয়েছে ২৮০ স্কয়ার কিলোমিটার

বিশ্বের অক্সিজেন সাপ্লাইয়ের আধার আমাজন ধ্বংসের পরিমাণ জানুয়ারিতে পূর্বের তুলনায় ২ গুণ বেড়েছে। শুক্রবার প্রকাশিত এক অফিসিয়াল তথ্যে এ খবর জানা যায়। খবর এএফপি।

২০২০ সালের জানুয়ারিতে ২৮০ স্কয়ার কিলোমিটারের (১১০ স্কয়ার মাইল) বেশি বন নিধন করা হয়েছে। পূর্বের তুলনায় এই বৃদ্ধির হার ১০৮%। ব্রাজিলের জাতীয় মহাকাশ গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইএনপিই) মতে, ২০১৫ সালের পর এই বৃদ্ধি সর্বোচ্চ, ওই বছর থেকেই আমাজন বন নিধনের তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু হয়। তথ্যগুলো আইএনপি ‘র স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয়েছে, যাতে বন নিধনের প্রকৃত সময় ও অবস্থা দেখা যায়।

এর আগে সর্বোচ্চ পরিমাণ নিধন হয়েছিল ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ১৩৬ স্কয়ার কিলোমিটার, ২০১৮ এ ১৮৩ স্কয়ার কিলোমিটার এবং ২০১৭ এ ৫৮ স্কয়ার কিলোমিটার। যা প্রতিবছরই ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

মধ্য জানুয়ারি-২০২০ এ আইএনপিই প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায়, ২০১৯ সালে ব্রাজিলের উত্তরাঞ্চলে আমাজন বন নিধন ৮৫% বৃদ্ধি পায়। এই বছরে ৯ হাজার ১৬৬ স্কয়ার কিলোমিটার নিধন করা হয়। যা গত ৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। অন্যদিকে, ২০১৮ সালে বন নিধন হয়েছিল ৪ হাজার ৯৪৬ স্কয়ার কিলোমিটার।

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট হিসেবে জেয়ার বলসোনারো দায়িত্ব নেয়ার প্রথম বছর এটি সর্বোচ্চ গতি লাভ করে। তিনি ক্ষমতায় এসে জলবায়ু পরিবর্তনকে উপেক্ষা করে আমাজন ধ্বংসে আইন শিথিল করে দেন। এর আগে গত বছরের আগস্টে আমাজনে আগুন লাগার ঘটনায় বলসোনারো বিশ্ব মিডিয়ায় শিরোনাম হয়েছিলেন। ওই সময় আমাজনের প্রায় কয়েক লাখ হেক্টর পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

২০১৯ সালের ২ আগস্ট, আইএনপিই প্রেসিডেন্ট রিকার্ডো গ্যালভাউকে বরখাস্ত করে বলসোনারো প্রশাসন। গ্যালভাউ তাদের প্রেসিডেন্টকে আমাজন ধ্বংসের জন্য অভিযুক্ত করেন, এর প্রেক্ষিতেই তাকে বরখাস্ত করা হয়।

গত বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বলসোনারো আমাজনের উপজাতিদের বসতিস্থলে খনিজ সম্পদ উত্তোলন, চাষাবাদ ও হাইড্রো ইলেক্ট্রিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের পরিকল্পনার ঘোষণা দিয়েছেন। অনেকগুলো এনজিও এ ঘটনায় আমাজন ধ্বংস আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মন্তব্য করেছে। 

যে বিলের মাধ্যমে আমাজনে এসব প্রকল্পের পরিকল্পনা ঘোষণা করা হয়েছে, সেটা ক্ষমতাসীন চরম ডানপন্থি সরকারের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল। কিন্তু এটা পরিবেশদিব ও উপজাতি নেতাদের জন্য দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/এম

bnbd-ads