মোটরসাইকেল চুরির মামলায় ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

বরিশাল প্রতিনিধি
১৮ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার
প্রকাশিত: ১২:৫২

মোটরসাইকেল চুরির মামলায় ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

শরীয়তপুরের উত্তর ডামুড্যা থেকে মোটরসাইকেল চুরির মামলায় নাঈম হাওলাদার (২৫) নামে ছাত্রলীগের এক নেতাকে গ্রেফতার করেছে বরিশালে গৌরনদী থানা পুলিশ।  রবিবার (১৭ জানুয়ারি) রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

নাঈম হালাদার শরীয়তপুরের উত্তর ডামুড্যা এলাকার আব্দুল কুদ্দুস হাওলাদারের ছেলে।  গ্রেফতারের সময় নাঈম হাওলাদার ডামুড্যা উপজেলার দারুল আমান ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে নিজেকে পুলিশের কাছে পরিচয় দেন। 

গৌরনদী থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ওসি মো. আফজাল হোসেন জানান, মোটরসাইকেল চুরির মামলায় উত্তর ডামুড্যা থেকে রবিবার রাতে নাঈম হাওলাদারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরপর রাতে তাকে গৌরনদী থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।  আজ সোমবার (১৮ জানুয়ারি) তাকে আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হবে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গৌরনদী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. তৌহিদুজ্জামান জানান, গত বছরের ৬ মার্চ রাতে পুলিশের সদস্যরা গৌরনদী কলেজের সামনে তল্লাশি চৌকি বসান।  এ সময় তারা গৌরনদীর গোবর্ধন এলকার সাকিবুর রহমান সরদারকে (২১) মোটরসাইকেলসহ থানায় নিয়ে যান।  মোটরসাইকেলের কাগজপত্র না থাকায় তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সাকিবুর রহমান জানান কিছুদিন আগে গোবর্ধন এলাকার রুম্মান সরদার নামে এক যুবক ১৫০ সিসির দুইটি পালসার মোটরসাইকেল বিক্রির কথা বলেন।  পরে রুম্মান সরদারের মাধ্যমে তিনি ৫৫ হাজার টাকায় একটি মোটরসাইকেল ক্রয় করেন।  আরেকটি মোটরসাইকেল তার বন্ধু শফিকুল ইসলাম ক্রয় করেন।  

এ ঘটনায় পরদিন ৭ মার্চ পুলিশ বাদী হয়ে সাকিবুর রহমান, শফিকুল ইসলাম ও রুম্মান সরদারকে আসামি করে থানায় মামলা করেন।  পরে সাকিবুর রহমানের দেওয়া তথ্য অনুযাই গ্রেফতার করা হয় রুম্মান সরদারকে।  রুম্মান সরদার পুলিশের কাছে শরীয়তপুরের উত্তর ডামুড্যা এলাকার কাওছার হোসেন নামে এক যুবকের কথা বলেন।  সম্প্রতি পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন কাওছার হোসেন। 

পরিদর্শক (তদন্ত) মো. তৌহিদুজ্জামান জানান, কাওছার হোসেন মোটরসাইকেল চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।  কাওছার হোসেন পুলিশকে বলেছেন চুরির মূল পরিকল্পনাকারী তার বন্ধু দারুল আমান ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি নাঈম হালাদার।  তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী গতকাল সন্ধ্যায় উত্তর ডামুড্যা থেকে নাঈম হাওলাদারকে গ্রেফতার করা হয়। 
গ্রেফতারের পর নাঈম হাওলাদার প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নে রাম সাধুর মেলা থেকে প্রায় এক বছর আগে কাওছারের সহায়তায় মোটরসাইকেল দুটি চুরি করেছিলেন।  চুরির মাসখানেক পর রুম্মান সরদারের মাধ্যমে তিনি মোটরসাইকেল দুটি বিক্রি করেনে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তৌহিদুজ্জামান বলেন, সোমবার (১৮ জানুয়ারি) নাঈম হালাদারকে আদালতে সোপর্দ করা হবে।  ওই দুটি ছাড়াও আরও মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় নাঈম হালাদার জড়িত রয়েছেন কি-না বা তার নেতৃত্বে কোন চোর চক্র রয়েছে কি-না জানতে করে রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করা হবে।

ব্রেকিংনিউজ/এসপি

bnbd-ads