একুশে বইমেলায় মাহবুব দুলালের কাব্যগ্রন্থ ‘তুমি অবিনাশী’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার
প্রকাশিত: ১১:৪৫

একুশে বইমেলায় মাহবুব দুলালের কাব্যগ্রন্থ ‘তুমি অবিনাশী’

‘তুমি অবিনাশী’ কাব্যগ্রন্থ প্রকাশের মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করলেন কবি মাহবুব দুলাল। চলতি একুশে বইমেলায় পাওয়া যাচ্ছে তার এ কবিতার বইটি। ‘বলাকা’ প্রকাশনী বইটির সূতিকাগার। বইমেলায় প্রকাশনীর স্টলে মিলছে সুখপাঠ্য এ কাব্যগ্রন্থ।

‘মুজিবশতবর্ষে’ প্রকাশিত ‘তুমি অবিনাশী’ বইটির অবিনাশী ‘তুমি’ হলেন বাঙালি জাতির জনক, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কবির দর্শনে দেশকে ভালবাসতে হলে বঙ্গবন্ধুকে জানতে হবে। জাতির পিতা ছাড়া এ দেশকে কল্পনাতেও দেখতে চান না তিনি।

‘মুজিব শতবর্ষে’ কবিতায় তিনি বাংলার প্রাপ্তি, প্রত্যাশা ও ঘাটতির বিষয় তুলে ধরেছেন। বঙ্গবন্ধুকে উদ্দেশ করে তিনি বলেছেন, ‘তব জন্ম শতবর্ষে আজ নতুন করে কড়া নাড়ে বদ্ধ দুয়ারে, টের পায় অস্তিত্ব তোমার প্রজন্মের সন্তান’। আবারও বলছেন, এতকিছুর পরেও ‘বাংলার আকাশে তবু ধোঁয়াশার রঙ কালো মেঘ ভেসে আসে বারবার; যুদ্ধাপরাধী-খুনি-কু-চক্রীরা আবারো ফেরে রক্ত স্নাত এই দেশে, ওদেরই রক্ত পিপাসু বুলেট একদিন নিকষ রাতে ক্ষত-বিক্ষত করে স্বদেশের স্ফিত বুক। কবি মাহবুব দুলালের কাছে একাত্তরে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে পাওয়া স্বাধীন দেশটিই অহংকার আর ভালোবাসা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারন করে এ মাটিতেই মরতে চান তিনি। স্বপ্ন দেখেন দুর্নীতি আর মাদকমুক্ত এক আদর্শিক সমাজের। তার কবিতা জুড়ে এই অনুভূতিই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। রয়েছে দেশপ্রেম, স্বাধীনতা আর জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রতি অবিচল বিশ্বাস। তার প্রকাশিত ‘তুমি অবিনাশী’ কবিতার বইটির প্রতিটি বাক্যে সেই বিশ্বাসই বিমূর্ত হয়ে রয়েছে।

মোট ৩৪টি কবিতা নিয়ে তার এই কাব্যগ্রন্থ। কবিতার শিরোনামে আছে-মুজিব শর্তবষ, টুঙ্গিপাড়ার খোকা, একটি খোকার জন্ম, কিশোর মুজিব, শ্রেষ্ঠ বাঙালি, কালরাত, মুক্তিযোদ্ধা, শ্রদ্ধার শহীদ মিনার, তুমি অবিনাশী, মার্চ মানে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ, স্বাধীনতা, দেখিনি মুক্তিযুদ্ধ, চিরশিশু এক, আমি বাঙালি, তুমি অজেয়, বাংলার নারী, মুজিবুর রহমান, আমাদের ২৬ মার্চ, বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা, আবার কি ফিরবে?, যাদের রক্তে অমর একুশ, তোমরা মৃত্যুঞ্জয়ী, আমরা কি স্বাধীন?, তুমি অমর, নতুন সূর্যোদয়, মুক্ত জননী, ১০ জানুয়ারী, বাঙালি হায়েনা, জেলহত্যা, বীরের সমাধি, আগস্ট এবং ২১ আগস্ট, আত্মায় ঘুণ, বঙ্গমাতা ও শতবর্ষে অর্জন-বেদনা-প্রত্যাশা।

কবি দুলাল জানান, ‘তুমি অবিনাশী’ কাব্যগ্রন্থটি আমার প্রথম প্রকাশ। যে কোন সৃষ্টি মাত্রই প্রকাশের প্রহর গোণে। সৃষ্টির আনন্দ প্রকাশেই। প্রতিটি লেখকের কাছেই তার প্রথম বইয়ের প্রকাশ নিয়ে আসে এক অন্যরকম অনুভূতি। আবেগতাড়িত ভালোবাসা ও অলৌকিক আনন্দ জড়িয়ে থাকে বই প্রকাশের যাবতীয় আয়োজনে। আলোতে উদ্ভাসিত হয় মন। এবার বইমেলাটাকে মনে হচ্ছে বড় আপন। মনে হচ্ছে যেন, পুরো মেলাটিই আয়োজন করা হয়েছে কেবলই আমারই জন্য।

তিনি বলেন, ‘আমি আমার কবিতায় প্রেম, দ্রোহ, দুঃখ জাগানিয়া, মাটি আর মানুষ এবং বিপ্লবের কথা বলেছি। যেখানে ছড়িয়ে আছে বাঙালির মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু। মুজিব বর্ষে এই বইয়ের মধ্য দিয়ে তাঁকে আমি আমার শ্রদ্ধা জানাচ্ছি’। তবে তিনি বই প্রকাশের এ আনন্দে কাছের মানুষদের ভুলে যাননি। তিনি পৃষ্ঠপোষকতার হাত বাড়িয়ে দেয়া অভিভাবকতুল্য ব্যক্তিত্ব রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিনকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। আরও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সহকারি অধ্যাপক এএইচএম কামরুজ্জামান, সাহিত্যিক সাংবাদিক ইলিয়াস আরাফাত, সাংবাদিক কাজী শাহেদ, সাংবাদিক মামুন-আর- রশিদ, সাংবাদিক বদরুল হাসান লিটন, সঈদ আলী রেজা। তাদের উৎসাহ আর অনুপ্রেরণা আমাকে প্রাণিত করেছে। এই কাব্যগ্রন্থটি পাওয়া যাচ্ছে অমর একুশে বইমেলায় বলাকা প্রকাশনের ৭২৫ নম্বর স্টলে। মাহবুব দুলাল বর্তমানে বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি’র রাজশাহী প্রতিনিধি। 

ব্রেকিংনিউজ/এমজি

bnbd-ads